এন্ড্রু কিশোর আজ আর নেই, তিনি আর গাইবেন না কখনো তার সমধুর কন্ঠে কোনো গান। এই খ্যাতিমান শিল্পির চিকিৎসার আপডেট জানতে দেশবাসী যে সময় উ’দ্বি/গ্ন থাকতো সেই সময় মিডিয়াকে সর্বশেষ তথ্য প্রদান করতেন মোমিন বিশ্বাস। অ্যান্ড্রু কিশোর যে অবস্থায় থাকতেন তিনি তা জানতেন এবং মিডিয়াকে জানিয়ে তিনি একজন অলিখিত মুখপাত্র হয়ে ওঠেন। অ্যান্ড্রু কিশোর মমিনকে খুব ভালোবাসতেন। আস্তে আস্তে সবাই জানতে পারলো অ্যান্ড্রু কিশোরের একজন একনিষ্ঠ শিষ্য মোমিন বিশ্বাস। অ্যান্ড্রুর প্রয়ানের পর তাকে ভী’/ষনভাবে ব্যাথিত করেছিল। কারণ সঙ্গীত জগতের আর কেউ তাকে এভাবে ভালোবাসেনি।
হয়তো সেই অভাব অনেকটাই পূরণ করার চেষ্টা করেন সাবিনা ইয়াসমিন। কেনন এন্ড্রু কিশোর সবখানেই মোমিনকে পরিচয় করিয়েই দিয়েছেন শুধু নয়, জানিয়েছিলেন কতটা পছন্দের মোমিন। সাবিনা ইয়াসমিন তার মাঝে এন্ড্রু কিশোরের ছায়া খোঁজেন। মোমিনের সঙ্গে দেখা হলেই যেন এন্ড্রু কিশোরের উপস্থিতি টের পান। গত বছর সাবিনা ইয়াসমিন নিজে বলেছিলেন এন্ড্রু কিশোরের কতটা আপন ছিলেন মোমিন বিশ্বাস।

সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, আমাদের সঙ্গে মোমিনকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে এন্ড্রু কিশোর নিজেই। শুধু তাই নয় কিশোর নিজেই ওকে তালিম দিতো। বলতো আমার একমাত্র শিষ্য। এখন কিশোর নেই। মোমিনকে দেখলেই আমার কিশোরের কথা মনে পড়ে।

শুক্রবার এন্ড্রু কিশোরের শিষ্য মোমিন বিশ্বাস বিয়ে করেছেন কণ্ঠশিল্পী নোশিন তাবাসসুম সরণকে। বিবাহোত্তর সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়েছিল রাজধানীর আফতাব নগর এলাকার সিরাজ কনভেনশন সেন্টারে। সেখানে উপস্থিত হন গাজী মাজহারুল আনোয়ার, সাবিনা ইয়াসমিন, সামিনা চৌধুরী, শাহনাজ রহমান স্বীকৃতি, চিত্রনায়িকা অঞ্জনাসহ অনেকেই।

সাবিনা ইয়াসমিন যখন মোমিনের পাশে গিয়ে কথা বলছিলেন। তখন সামান্য দূর থেকেই বোঝা যাচ্ছিল কী নিয়ে কথা হচ্ছিল। এন্ড্রু কিশোরকে নিয়ে যে কথা হচ্ছিল তা স্পষ্টই ছিল। হয়তো বলা হচ্ছিল, আজ এন্ড্রু কিশোর এই অনুষ্ঠানে থাকলে অনেক খুশি হতেন। কথার মধ্যেই কা’ন্নায় ভে’ঙে পড়েন বর সাজের মোমিন বিশ্বাস। চোখের জল ধরে রাখতে না পেরে আ’ড়া/ল করার চেষ্টা করেন। এসময় সাবিনা ইয়াসমিন ও নববধূ সরণ তাঁকে সান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করেন। বিয়ের আসর যেন এই কান্নায় মু’হূর্তেই থমকে যায়। আগত অতিথিরা অবাক হয়ে মঞ্চের দিকে তাকিয়ে আছেন। বেশ কয়েক মিনিট পর স্বাভাবিক হন মোমিন বিশ্বাস।

সংগীতের জীবন্ত কিংবদন্তি সাবিনা ইয়াসমিন বলেছিলেন, ’যখন আমরা এন্ড্রু দার জন্য সিঙ্গাপুরে প্রোগ্রাম করতে গেলাম। তখন আরো স্পষ্ট হলো, কিরকমভাবে এন্ড্রু কিশোর ওকে ভালোবাসে। আমি আশ্চর্য হয়ে গেছি। কেন বলছি- আমরা যখন সিঙ্গাপুর যাব, তখন ওর ভিসাসংক্রান্ত জ’টি/লতা তৈরি হয়। আমি, হাদী ভাই, মিতালি ও কলকাতা থেকে মিউজিশিয়ানরা... তখন ওর (মোমিন) ভিসার সমস্যা হচ্ছিল। কোনোভাবেই ভিসা হচ্ছিল না। মোমিনের ভিসার জন্য সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এন্ড্রু কিশোর কতবার যে ফোন করল ওর ভিসার জন্য। ৫ মিনিট পর পর ফোন, মোমিনের ভিসা হলো কি না। যা-ই হোক, আল্লাহর ইচ্ছায় ওর ভিসাটা হয়ে গেল, ওকে নিয়ে গেলাম সিঙ্গাপুর, সেখানে দেখেছি এন্ড্রু কিশোরের মোমিনের প্রতি ভালোবাসা।’

গেল বছর হাতিরঝিলের কাছাকাছি স্টুডিওতে বসে কিছু কথা বলেছিলেন তিনি, যেটা প্রমান করলো বিয়ের একটি আসরে। অ্যান্ড্রু কিশোরকে ভালোবাসার নিদর্শন হঠাৎ দেখা দেওয়ায় বিয়ের পার্টি কিছু সময়ের জন্য থমকে গিয়েছিল। মোমিন বিশ্বাস নিজেও একজন কণ্ঠশিল্পী। জনপ্রিয় সব কন্ঠশিল্পীরা এই শিল্পীর সাথে গান গেয়েছেন। গানের জগতে নোশিন তাবাসসুম সরণের সাথে পরিচয় হয় মোমিনের। এরপর তারা জীবন চলার পথ একি ছাদের নিচে করার সব আয়োজন পারিবারিকভাবে করেছেন।