বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ’বুলবুল’ আরো শক্তিশালী রূপ ধারণ করেছ, আবহাওয়াবিদরা ঘুর্নিঝড়টিকে ’ভেরি হেভি সাইক্লোনিক স্টর্ম’ হিসাবে চিহ্নিত করেছেন, এবং ঝড়ের তীব্রতার মানদন্ডে সাতের মধ্যের পঞ্চম অবস্হানে রয়েছে বর্তমানে।
এদিকে আগামীকাল শনিবার মধ্যরাতের দিকে বাংলাদেশের খুলনা-বরিশাল অঞ্চলে আঘাত হানতে পারে ঘুর্নিঝড়টি।ঘূর্ণিঝড়টি উপকূলে আছড়ে পড়ার সময় বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩৫ কিলোমিটার থেকে ১৪৫ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে।


ঘূর্ণিঝড় ’বুলবুল’র শক্তিশালী আঘাতের আশঙ্কায় পটুয়াখালীর পায়রা, খুলনার মোংলা সমুদ্র বন্দরকে ৭ নম্বর, চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত এবং কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ঘূর্ণিঝড়টির অবস্থান সম্পর্কে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, আজ সকালে ঘূর্ণিঝড় ’বুলবুল’ চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৭৬৯ কিলোমিটার দক্ষিণ দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার থেকে ৭১০ কিলোমিটার দক্ষিণ দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৬৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। ঘূর্ণিঝড়ের বাতাসের গতিবেগ ১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আজ শুক্রবার ঘূর্ণিঝড়টি অত্যন্ত শক্তিশালী সাইক্লোনে (ভেরি হেভি সাহক্লোনিক স্টর্ম) রূপ নেয় বলে এক বার্তায় জানিয়েছে ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর।


এদিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন জাহাজ চলাচল বন্ধ রয়েছে। সেন্টমার্টিন দ্বীপে আটকা পড়েছেন কয়েকশ’ পর্যটক। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সাগর কিছুটা উত্তাল থাকায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে ঢাকা, কক্সবাজার, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। এর প্রভাবে খুলনায় আজ সকাল থেকেই রোদের দেখা পাওয়া যায়নি। সেখানে আকাশে কালো মেঘ জমে আছে। তবে কোনো বাতাস নেই, নেই বৃষ্টিও।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আজই বাতাসসহ বড় ধরনের বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে সন্ধ্যা থেকে থেমে থেমে বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।