জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন করা হলে, আদালত আবার তার জামিন আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন। আদালতের এ রায়ের পরপরই চলছে সারাদেশ জুরে হট্রগোল। এ সময়ে বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা বলে, আদালতের এ রায় নজিরবিহীন। যেখানে পাকিস্থানের সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে নওয়াজ শরীফকে জামিন দিয়েছে সেখানে খালেদা জিয়াকে জামিন না দেওয়া নজিরবিহীন।
এদিকে আজ সুপ্রিম কোর্টের গেইট থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক আইনজীবীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) দুপুরে মো. ফাইজুল্লাহ নামে ওই আইনজীবীকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, তাকে তো গ্রেফতার করা হয়নি। সন্দেহ হওয়ায় আটক করা হয়েছিল।

এদিন সকালে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন শুনানিকালে ফাইজুল্লাহকে আটক করে পুলিশ। ঘটনাস্থলে তল্লাশি করার সময় ফাইজুল্লাহ কোর্টের ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করেন।

তখন পুলিশ সদস্যরা তার পরিচয় জানতে চাইলে তিনি উল্টো প্রশ্ন করেন- আপনি কে? কোর্ট সংশ্লিষ্ট কেউ আপনাদের সঙ্গে আছে? কিন্তু ওই সময় তিনি তার পরিচয় দিতে চাননি। বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে পুলিশ তাকে আটক করে।

পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আমরা তাকে গ্রেফতার করিনি, শুধুমাত্র তাকে সন্দেহভাজন ভাবেই তাকে আটক করেছিলাম। যেহেতু প্রথমে তিনি তার পরিচয় দেয়নি সেহেতু তাকে আমরা সন্দেহ করেছিলাম। তবে পরবর্তীতে তার পরিচয় মিললে আমরা তাকে ছেড়ে দেই। তবে
অন্যদিকে জনসম্মুক্ষে তাকে তাকে আটক করায় অনেকেই তাদের সমালোচনা করেছেন।