শান্তিপূর্ণ সমাবেশ বা কর্মসূচি পালন করতেও বাধা দিত আওয়ামী লীগকে : জয়

বিএনপি দীর্ঘ দিন ক্ষমতার বাহিরে রয়েছে যার কারনে সাংগঠনিক ভাবে দুর্বল হয়েছে পড়েছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতায় যেতে তারা সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ইস্যুতে আন্দোলন করছে। তবে দলটির পক্ষ থেকে বার বার অভিযোগ করা হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা তাদের সমাবেশ করতে বিভিন্ন বাধা দিচ্ছে। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময় আওয়ামীলীগের স/মাবেশে টি/য়ার শেল মে/রে পন্ড করা হতো মন্তব্য করে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

বিএনপি সরকার টি/য়ারশেল ছুড়ে আওয়ামী লীগের জনসভা পন্ড করত বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে ও তার আইসিটি উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয়। মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের ভেরিফায়েড পেজে কিছু ছবি শেয়ার করে তিনি এ কথা বলেন।

সজিব ওয়াজেদ জয় লিখেছেন, খালেদা জিয়ার গণতন্ত্র: বিএনপি-জামায়াত সরকার আওয়ামী লীগের জনসভা লা/ঠিপেটা টিয়ার মেরে প/ন্ড করত। বিএনপির গণতন্ত্র মানেই বিরোধীদের ওপর অ/ত্যাচার-নি/র্যাতন, এমনই হা/জারটি ঘটনা একটি আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম।

তিনি লিখেছেন, ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিএনপি-জামায়াত সরকার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দ/মন-পী/ড়ন শুরু করে। এমনকি আওয়ামী লীগকে কোনো শান্তিপূর্ণ সমাবেশ বা কর্মসূচি পালনে বাধা দেওয়া হয়। সরকার বিরোধী সমাবেশকে দমন করার জন্য জাতীয়তাবাদী বাস্তুহারা দলের ব্যানারে ছিন্নমূল স/ন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা না/শকতামূলক হামলা এবং টি/য়ারশেল
মা/রাত পুলিশ দিয়ে।

২৯শে মার্চ,২০০২ তারিখে এই নৃ/শংস খবরটি ছবিসহ জনকণ্ঠ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। দেখা যায়, মুক্তাঙ্গনে আওয়ামী লীগের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে পুলিশ তিন রাউন্ড টি/য়ারশেল নিক্ষেপ করে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা ভাষণ দেন। এরপর পুলিশ সদস্যরা লা/ঠিপেটা করে সমাবেশস্থল খালি করে দেন, লিখেছেন জয়।

তিনি বলেন, কয়েকজন ভাড়াটে স/ন্ত্রাসী পুলিশের সঙ্গে আওয়ামী নেতাকর্মীদের ওপর হা/মলা চালায়। বিএনপির হাওয়া ভবন সিন্ডিকেটের একজন সংসদ সদস্যের পৃষ্ঠপোষকতায় এসব গু/ন্ডা জাতীয়তাবাদী বাস্তুহারা দল নামে সংগঠিত হয়। ছিন্নমূল স/ন্ত্রাসীদের এই গ্রুপের একটি অংশ বিএনপি-জামায়াতের গডফাদারদের মাদক ব্যবসার বাহক হিসেবে কাজ করে।

পুলিশের বেপরোয়া টিয়ারের আঘাতে আ/হত হন মতিয়া চৌধুরী, সেগুফতা ইয়াসমিন, মারিয়া, লিপি, শিখা, হেলেন, মেয়র হানিফ। মোখরসুর রহমান, আব্দুস সাত্তারসহ ২০ নেতাকর্মী।

প্রসঙ্গত, বিএনপি গনতন্ত্রের কথা বলে যারা ক্ষমতায় থাকতে বিরোধী দলের মিছিল, মিটিং, সমাবেশ করতে দিতে না মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। তিনি আরও বলেন, তাদের এমন কর্মকান্ডে সম্পর্কে দেশের মানুষ অবগত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *