সয়াবিন তেলে মাত্র ৪ দিনে ২৮ কোটি টাকা লোপাট

ব্যবসায়ীরা আগের দামে সয়াবিন তেল বিক্রি করছেন তাদের যুক্তি, আগে বেশি দামে আমদানি করেছেন, তাই আগের দামে বিক্রি করছেন এই অজুহাতে ভোক্তাদের পকেট থেকে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে কোটি কোটি টাকা।

সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী, বোতলজাত সয়াবিন তেল এখন বাজারে খুচরা বিক্রি হচ্ছে প্রতি লিটার ১৭৮ টাকায় এবং খোলা তেল ১৫৮ টাকায় লিটারে।

বাস্তবে এখন বোতলজাত সয়াবিন প্রতি লিটারে ১৯০ থেকে ২০০ টাকা এবং খোলা সর্বনিম্ন ১৭৫ টাকা প্রতি লিটার।

ভোক্তা বিষয়ক অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে সয়াবিন তেলের দৈনিক চাহিদা পাঁচ হাজার টন সে অনুযায়ী গত চার দিনে ২০ হাজার টন অর্থাৎ দুই কোটি লিটার সয়াবিন তেল লিটারে ১৪ টাকা বেশি দরে বিক্রি হয়েছে। চার দিনে গ্রাহকদের কাছ থেকে মোট ২৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ দিনে সাত কোটি টাকা বাড়তি মুনাফা করেছে ব্যবসায়ীরা

ব্যবসায়ীরা প্রতিদিন কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বিষয়টি ভোক্তা অধিদপ্তর অবগত থাকলেও বাজারে ব্যবসায়ীদের শক্ত অবস্থানের কাছে সংস্থাটি অসহায় তবে অধিদফতর আশা করছে দুই দিনের মধ্যে দাম ঠিক হয়ে যাবে।

বিশ্ববাজারে সয়াবিন তেলের দাম কমে যাওয়ায় গত ৩ অক্টোবর দেশের বাজারে ভোজ্যতেলের দাম সমন্বয়ের উদ্যোগ নেয় সরকার। এরই অংশ হিসেবে বোতলজাত সয়াবিন তেল লিটারে ১৪ টাকা কমিয়ে রাখা হয়েছে। খোলা তেল প্রতি লিটারে ১৭ টাকা। আর পাঁচ লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ৮৮০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে এই দাম আগামী ৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর হওয়ার কথা।

এর আগে ২৩ আগস্ট, সরকার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ১৯২ টাকা এবং খোলা সয়াবিন তেলের দাম প্রতি লিটার ১৭৫ টাকা নির্ধারণ করেছিল। আর সে সময় পাঁচ লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম নির্ধারণ করা হয়েছিল ৯৪৫ টাকা

নতুন মূল্য নির্ধারণের পরও বাজারে তেল বিক্রি হচ্ছে ২৩ আগস্টের দামেই

শুধু তাই নয়, বাজারে বোতলজাত সয়াবিন তেল আগের দামে বিক্রি হলেও কোথাও কোথাও খোলা তেল আগের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর কলাবাগান এলাকার বাসিন্দা স্বপন মিয়া একজন চাকরিজীবী তিনি জানান, শনিবার বাড়ির পাশের দোকান থেকে এক লিটার খোলা সয়াবিন তেল ১৭৫ টাকায় কিনলেও সরকার নির্ধারিত দাম ১৫৮ টাকা।

তিনি বলেন, নির্ধারিত দামের কথা বললে দোকানদার বলেন, তেল নেই, অন্য জায়গা থেকে কিনে আনেন।

হাতিরপুল এলাকার বাসিন্দা আব্দুল জব্বার জানান, আগের দামে পাঁচ লিটারের বোতল সয়াবিন তেল কিনেছিলেন ৯৪৫ টাকায়। তিনি দাবি করেন, নতুন দামে কেউ তেল দেয়নি কোথাও কোথাও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

বিক্রেতারা বলছেন, নতুন তেল না পাওয়ায় আগের দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে ।
তবে আমদানিকারকদের দাবি, দাম কমানোর ঘোষণা দিলেও কেন খুচরা পর্যায়ে দাম কেন কমছে না তা তারা জানেন না।

সয়াবিন তেলের দাম কেন কমছে না জানতে চাইলে ভোজ্যতেল আমদানিকারক সিটি গ্রুপের উপদেষ্টা অমিতাভ চক্রবর্তীর কাছে জানতে চাইলে তিলি বলেন, খুচরা পর্যায়ে কেন কমছে না জানি না। আমরা কমানোর ঘোষণা দিয়েছি।

ব্যবসায়ীদের এ কৌশল ঠেকাতে ভোক্তা অধিদপ্তর ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ব্যবস্থা নিতে আহ্বান জানিয়েছে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)।

সংগঠনের সহ-সভাপতি এসএম নাজের হোসেন বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা জেনেশুনেই কৌশল করে এই লুটপাট চালাচ্ছে৷ তেলের নতুন দাম ব্যবসায়ীরাই আলোচনা করে ঠিক করেছে৷ ৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর করার কথা তারাই বলেছে, কিন্তু করছে না৷ তারা আগেই বেশি দামের সয়াবিন তেল ডিলারদের মাধ্যমে দিয়ে রেখেছে৷ সেই তেল তারা এখন বিক্রি করছে৷ নতুন তেল দিচ্ছে না৷ ওই তেল শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা দাম বাস্তবে কমাবে না৷’

তিনি বলেন, নিয়ম হলো তেলের দাম সমন্বয়ের পাশাপাশি নতুন দাম লিখে বাজারে ছাড়তে হবে তারা তা করেন না , দাম কমে গেলে তা সঙ্গে সঙ্গে করা হয় না। বোতলে নতুন দাম লেখার জন্য অপেক্ষা করতে হয় ।
তিনি বলেন, এখন এসব ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ভোক্তা বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব। কিন্তু তারা এটা নিচ্ছে না কারণ এই সরকার ব্যবসায়ীদের স্বার্থে কাজ করে তারা সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে না।

ভোক্তা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এএইচএম সফিকুজ্জামান বলেন, আমরা চাইলে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারি। তবে ব্যবসায়ীদের সাপ্লাই চেইন বিশাল তাই সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে এখন কিছু না করে আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি।

তিনি স্বীকার করেন, ‘ব্যবসায়ীরা এখন অতিরিক্ত মুনাফা লুটছে৷ তাদের কাছে আগের দামে যে তেল আছে সেটা বিক্রি করছে আগের দামেই৷ তাদের কৌশল হলো সেটা শেষ করার পর তারা কম দামে বিক্রি করবে৷ কিন্তু আইনে এটা পারে না৷ তারাই ৪ অক্টোবর থেকে দাম কমানোর ঘোষণা দিয়ে এখন খুচরা বিক্রেতা, ডিলার এমনকি ফ্যাক্টরিতে থাকা তেল বেশি দামে বিক্রি করছে৷ কিন্তু দাম বাড়ালে তারা সাথে সাথেই বাড়িয়ে ফেলে৷ এটা ব্যবসায়ীদের অসৎ মাননিসকতা৷ এর পরিবর্তন না হলে শুধু আইন দিয়ে কিছু হবে না৷’

সূত্র: ডয়চে ভেলে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *